শুক্রবার, ৩ জুলাই, ২০২০

রিভিউ : ইন্দিরা মুখোপাধ্যায়






সোনালি খড়ের বোঝা
ক্যাফে টেবল
মৌসুমী ঘোষ
মূল্য: ১২৫ টাকা

বইয়ের ব্লার্বে লেখা আছে "সংসারে যা দেওয়ার সবই হয়ে গেছে দেওয়া। শস্য সব কেটে নিয়ে গেছে, এখন মাঠে শুধু খড়"
সেই খড়ের বোঝা নেড়ে চেড়ে দেখতে গিয়ে দেখি এ তো আমাদের সবার জীবন থেকে উঠে আসা গল্প। যার মধ্যে রয়েছে মৌসুমির নিজস্ব পুঙ্খানুপুঙ্খ অন্তদৃষ্টি। প্রথম গল্প সোনালি খড়ের বোঝায় তেমনি সামান্য ঘটনায় আলো ফেলে পাঠক ভেদ করতে সক্ষম হয় জীবনানন্দের কলম রহস্য কে। গদ্যের সুচারু কথন টেনে নিয়ে যায় শুর থেকে শেষ পর্যন্ত। ঘটনা, চরিত্রদের কথোপকথন সবকিছুর স্রোতে লক্ষ্যভ্রষ্ট না হয়ে পাঠক পায় মুক্তির আস্বাদ।

তেমনি একটি অতি বাস্তব গল্প হল ফোনের মেয়ে। ঝরা পাতার মত ব্রাত্য মহিলা বকুলের একাকী জীবনে প্রোফেশানাল কলার মেয়েরা এক পশলা সুবাতাস দেয়। ঠিক মেয়ের মত দূর থেকে রিমোট কন্ট্রোলে ভালো রাখে বকুল কে। সারাদিন ধরে লাগাতর টেলিফোনে বকুলের সঙ্গে মেয়েলি অতি কথন কিছুটা একঘেয়ে লাগলেও শেষে গিয়ে চোখের কোণা ভিজে ওঠে।

ঠিক তেমনি পেসমেকার গল্পটিও মা-বাবা চলে যাবার পরে নীলার পুরনো বাড়ি দালালের কব্জা বন্দী হওয়া থেকে আটকে দেয় তার বাবার পেসমেকার। স্মৃতি ভারাতুর নীলা একদিকে মা, বাবার স্মৃতি হাতড়ে মরে অন্যদিকে সেই যন্ত্র তাকে মুক্তি দিয়েও দেয় না। তার স্বর্গতঃ বাবা যেন তখনো আগলে রাখেন। এই ছোটগল্পটিতে কল্পবিজ্ঞানের ইশারা রয়েছে। লেখিকা ভাবুন আরো বিশদে।

এভাবেই সাধারণ বিষয়গুলো অন্যধরণের ভাবনা নিয়ে ধরা দেয় এই বইখানিতে। 

কোন মন্তব্য নেই:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন