রবিবার, ২৬ এপ্রিল, ২০২০

অলোক গোস্বামীর অণুগল্প : হারানো-প্রাপ্তি-নিরুদ্দেশ।। পারক গল্পপত্র



লকডাউন যে শেষ হবে, সত্যি বলতে কী, ভাবতেই পারছিলাম না। মনে হচ্ছিল হয়ত তার আগেই শেষ হয়ে যাব। যদিও আমার কোনো উপসর্গ ছিল না তবু জীবনের কি কোনো গ্যারান্টি থাকে?

যাক, বেঁচে তো গিয়েছি শেষ পর্যন্ত সুতরাং এটাকে সেলিব্রেট করতেই হবে। কতদিন বন্ধুদের মুখ দেখি না। বেঁচে থাকার অন্যতম একটা কারণ তো বন্ধুসঙ্গও।

দরজা খুলেই আমাকে দেখে নিলয় অবাক। বললো, সদ্য দুঃসময় কেটেছে, এত তাড়াতাড়ি না বেরুলে চলছিল না?

আমি হাতের প্যাকেট থেকে জনি ওয়াকারের বোতলটা দেখিয়ে বললাম, আমার চলছিল, এই সাহেবের চলছিল না।

চোখ চকচক করে উঠলো নিলয়ের। এটুকু দেখার জন্যই বেঁচে থাকা।

নিলয়ের বউয়ের রান্নার হাত দারুণ। সামান্য ভাজাভুজিও এত তরিজুত করে বানায় যাকে বলে লা জবাব। এক লিটারের বোতলের অধিকাংশটাই নিমিষে উড়ে গেল। হয়ত পুরোটাই যেত কিন্তু বাড়ি থেকে ঘনঘন ফোন আসছে। রাস্তা নাকি পুরো ফাঁকা হয়ে আসছে। ওফ, লোকের আর ভয় গেল না!

বাড়ি যাবার জন্য উঠে দাঁড়াতেই নিলয়ের বউ কী যেন একটা ইশারা করলো নিলয়কে। কিন্তু ব্যাটা ততক্ষণে এমন বেতালা যে খেয়ালই করলো না। অগত্যা আমিই বললাম, কিছু বলবে?

নিলয়ের বউ লজ্জিত গলায় বললো, তেমন কিছু নয়। গ্লাস, প্লেট আর চামচগুলো সেন্টার টেবিল থেকে নামিয়ে এক কোণে রেখে দিলে ভালো হয়।

অবাক হয়ে তাকালাম নিলয়ের দিকে। নিলয় সমর্থন করলো বউকেই, হ্যাঁ হ্যাঁ রেখে দে। সাবধানের মার নেই।

আমার হঠাৎ মনে পড়ে গেল ঠাকুমার কথা। ঠাকুমা বলতেন, দেশের বাড়িতে নাকি নীচু জাতের লোকদের খাওয়ার পর বাসন মেজে দিয়ে যেতে হোত। ওদের মধ্যে কেউ নিলয়ের আত্মীয় ছিল নাকি! তাদের উত্তরপুরুষ হিসেবে নিলয় শোধ তুলছে?

বললাম, বাসনগুলো মেজে দিয়ে যাই?

তেড়ে এলো নিলয়, রান্নাঘরে ঢুকবি, মানে! ইয়ার্কি হচ্ছে? মদ খাওয়ানোর বাহানায় মেরে যেতে চাইছিস? যা বলা হয়েছে সেটুকু করে আপাতত বিদেয় হ। কাল ঝি বেটি এসে মাজবে। এখন আমাকে সারা ঘরে স্যানিটাইজার ছিটিয়ে তারপর স্নান করতে হবে। যা পালা।

৭টি মন্তব্য:

  1. এই মন্তব্যটি লেখক দ্বারা সরানো হয়েছে।

    উত্তরমুছুন
  2. হয়ত এই জীবন অপেক্ষা করছে আমাদের জন্য। তবে ব্রাহ্মণ ব্রাহ্মণকেও ছোঁবে না। কিন্তু চন্ডাল চন্ডালকে দূরে রাখবে না হয়ত। আগুনের পাশে কেটে যায় যে সমস্ত জীবন।

    উত্তরমুছুন
  3. হয়ত এই জীবন অপেক্ষা করছে আমাদের জন্য। তবে ব্রাহ্মণ ব্রাহ্মণকেও ছোঁবে না। কিন্তু চন্ডাল চন্ডালকে দূরে রাখবে না হয়ত। আগুনের পাশে কেটে যায় যে সমস্ত জীবন।

    উত্তরমুছুন
  4. এ যেন নতুন করে অস্পৃশ্যতার গল্প।মানুষ মানুষে।ভালোবাসা ভালোবাসায়।প্রেম প্রেমে। এক অনিবার্য অন্ধকারের দিকে আমরা এখন এগিয়ে চলেছি...।কঠিন বাস্তব নিয়ে একদম নতু আঙ্গিকে অনবদ্য এই অলোকিত অণুগল্পেেের জন্য তোমায় ধন্যবাদ।

    উত্তরমুছুন
    উত্তরগুলি
    1. **এই অলোকিত অণুগল্পের জন্য তোমায় ধন্যবাদ। দীপঙ্কর মিত্র।৫ মে,২০২০

      মুছুন