রবিবার, ১২ এপ্রিল, ২০২০

রতন শিকদারের অণুগল্প : কাক-চিল সংবাদ





কাকদের মধ্যে চিৎকার চেঁচামেচির বহর ইদানীং খুবই বেড়ে গেছে। বােঝা যাচ্ছে না এর কারণ কী! কেউ বলছেন উচ্ছিষ্টের অভাব। আবার কেউ বলেছেন সহিষ্ণুতার অভাব। একে অপরের প্রতি একেবারেই সহনশীল নয়। আর যত গন্ডগােল সেই কারণেই। কাককুলশ্রেষ্ঠ কাক-চুড়ামণি ভীষণ ক্ষুব্ধ হয়ে গেল। কয়েকজন পরম বিশ্বস্ত পার্শ্বচরকে ডেকে পরামর্শ করল। সাধারণত চূড়ামণি কখনওই অন্যের পরামর্শ নিতে চায় না। কিন্তু তার মনে হল পরিস্থিতি অত্যন্ত ঘােরালাে হয়ে উঠছে। কাক-সাম্রাজ্য বিপদের সম্মুখীন হয়েছে। কিছু হিংস্র প্রজাতির চিল দূরদেশ থেকে এসে আক্রমণ শানাচ্ছে। তাদের ধারালাে ঠোটের আক্রমণে অনেক কাকই রণে ভঙ্গ দিয়ে ওই চিলদের দলে ঢুকে পড়ে আত্মরক্ষা করল। বেশিদিন এমন চলতে থাকলে কাকসাম্রাজ্যের পতন অনিবার্য। বিশ্বস্ত পার্শ্বচরদের সঙ্গে এক টানা ফিশফিশানির পর ঠিক হল প্রবাস থেকে ভূষণ্ডি কাককে আমন্ত্রণ করা হবে। শােনা যায় তিনি খুবই ব্যস্ত, তবে আর্তের আবেদনে তিনি সাড়া দেন। কিন্তু তিনি একা আসবেন না, সপারিষদ তিনি আসবেন এবং কাককুলের দায়িত্ব নেবেন।

ভূষণ্ডি কাকের সঙ্গে কাককুল-চূড়ামণি চুক্তি করে ফেলল। কথা হল তিনি যত্রতত্র যেতে পারবেন, যাকে খুশি উপদেশ দিতে পারবেন, প্রয়ােজনে শায়েস্তা করবার জন্য ধমক-ধামকও দিতে পারবেন। তিনি যেন অঘােষিত যুদ্ধ শুরু করে দিলেন।

জোর কদমে কাজ শুরু করলেন ভূযুণ্ডি মহাশয়। কাককুলে হঠাৎই সবাই কেমন যেন শান্ত সুশীল হয়ে গেল। ভূষণ্ডির চাপ বাড়তে থাকল কাকদের উপর। সামনে সব কাকই শান্ত ভাব দেখালেও ভিতরে ভিতরে তারা ক্ষিপ্ত হতে থাকল, কারণ কাককুল-চূড়ামণি ছাড়া আর কারাে আদেশ-উপদেশ তারা মানতে শেখেনি।

ধীরে ধীরে সৃষ্টি হল এক বিস্ফোরক পরিস্থিতি। এখানে ওখানে গােপনে ছােটো ছােটো গােষ্ঠীতে সঘবদ্ধ হয়ে কাকরা শলা পরামর্শ শুরু করল। চূড়ামণির কানে এসব খবর পৌছে দেবারও কাকের অভাব হল না। চুড়ামণি মেজাজ হারাল, তীব্র ভাষায় গালাগাল শুরু করল। ফল হল হিতে বিপরীত। ধূর্ত চিলের ইশারায় কয়েক টুকরাে মাংসের লােভে এক এক করে কাকরা ডানা মেলে আরও উঁচুতে চিলদের কাছে উড়ে গেল।

কিছুদিনের মধ্যেই দেখা গেল চিলেরা দলভারী হয়ে কাকসাম্রাজ্যের আকাশে কালাে মেঘের আবরণ সৃষ্টি করেছে! চিল-চিকারে কানে তালা লাগার উপক্রম। কাককুল-চূড়ামণি ঘরের দরজা-জানলা বন্ধ করে বসে পড়ল!

সর্বশেষ প্রাপ্ত সংবাদে জানা গেছে ভূষণ্ডি কাক উড়ে গিয়ে বসেছে নিমগাছের মগডালে। গালে হাত দিয়ে বসে সে ভাবছে, ব্যাপারটা কেমন হল!



কোন মন্তব্য নেই:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন