শনিবার, ৪ জানুয়ারী, ২০২০

সুমন্ত কুন্ডুর অণুগল্প : ছেষট্টি পাতার কবি

সুমন্ত কুন্ডু
ছেষট্টি  পাতার কবি


পত্রিকাটি প্রকাশ পেয়েছে । এটুকু খবর শুধু পেয়েছিল, তাও অনেকদিনের প্রতীক্ষার পর । ফেসবুকেরই কোন এক পেজে লেখা আহ্বানমূলক বিজ্ঞাপন । কাঁপা কাঁপা হাতেই নিজের একাকী ঘরে লেখা একখণ্ড কবিতা নিজের নাম সহ পাঠিয়ে দিয়েছিল । সেই শুরু প্রতীক্ষার । তারপর আর কোন খোঁজ নেই – না পত্রিকার না কবিতার ।

 অবশেষে একদিন জানা গেল পত্রিকা প্রকাশ হয়েছে । কিন্তু হাতে পাওয়া গেল না । পত্রিকা দপ্তর থেকে বাড়ি অনেক দূরে, একদিন সময় করে বইপাড়া ঘুরে সংগ্রহ করবে তাও হয়ে ওঠে না । খুঁজে খুঁজে ব্যর্থ হতে হয় । পত্রিকা দপ্তর প্রদত্ত প্রাপ্তিস্থানে রঙিন কাগজের ঝলমলে প্রদর্শনী । সে রঙের সমারোহে সাদা কালো  লিটল ম্যাগাজিনটি অবহেলার কোন ফাঁকে যে পড়ে থাকে, খুঁজেই পাওয়া যায় না ।  বাইপোস্টে আসবে সে সম্ভবনাও ক্ষীণ ।

অতএব আবারও প্রতীক্ষা ।

ফেসবুকেই খোঁচাখুঁচি । নতুন কবির বুকে শিহরণ ! তার লেখাটা কি আছে ? সত্যিই পৃথিবীবাসী দেখে ফেলেছে নাকি তার সৃষ্টিকে ! খবর পাওয়া গেল, লেখাটি নাকি আছে , ছেষট্টি পাতায় । কনফার্ম নয় তবে কোন সহৃদয় সম্পাদকমণ্ডলীর বন্ধুর বন্ধুর কোন এক স্বল্প পরিচিত কবিবন্ধুর কাছ থেকে আভাস পাওয়া গেল কবিতাটি থাকার কথা । নতুন কবির বুকে শিহরণ বাড়ল আরও, কবে হাতে পাব পত্রিকা । আবার প্রতীক্ষা ।

প্রায় বেশ কয়েকটি নির্ঘুম রাতের পরে, নতুন কবির মনে আত্মতৃপ্তির এক সীমাহীন সুখের পরশ বুলিয়ে অবশেষে পত্রিকাটি হাতে এল ।

সাগ্রহে পত্রিকাটি নিয়েই সটান ছেষট্টি পাতায় । যাহ্‌, চৌষট্টি পাতাতেই শেষ তো ! গোটা পত্রিকাটি জুড়ে কেবল প্রতিষ্ঠিত কবিদের কলমের আঁচড় । তার পরে ব্যাক কভার । তারা মা হার্ডওয়ার্স আর হারাণ মণ্ডল এল আই সি-র ভাগাভাগি বিজ্ঞাপন । কোথায় নতুন কবির ছেষট্টি নং পাতা !

না নেই ! ছেষট্টি নং পাতাটা ব্যক কভারের আগে স্থান করে নেয়ার উপায় নেই ! নতুন কবিকে আরও অপেক্ষা করতে হবে । আরও অনেক ছেষট্টি নং পাতা পেরিয়ে আসতে হবে।




কোন মন্তব্য নেই:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন